https://cpublish.com/

দান হলো বিনামূল্যে স্বেচ্ছায় অবৈধ প্রভাব, ভীতি প্রদর্শন বা মিথ্যা বর্ণনায় প্রভাবিত না হয়ে দাতা কর্তৃক গৃহীতার নিকট সম্পত্তির সকল অধিকার ও স্বত্ত হস্তান্তর।সম্পত্তি হস্তান্তর আইন ১৮৮২ এর ধারা ১২২ অনুসারে এক ব্যক্তি স্বেচ্ছায় ও বিনা পণে নির্দিষ্ট বিদ্যমান কোন স্থাবর বা অস্থাবর সম্পত্তি অন্য ব্যক্তিকে হস্তান্তর করলে এবং সে ব্যক্তি বা তার পক্ষ হতে অন্য কেউ এ হস্তান্তর গ্রহণ করলে তাকে দান বলা হয়। যে ব্যক্তি এভাবে সম্পত্তি দান করে তাকে দাতা আর যে ব্যক্তি এভাবে সম্পত্তি গ্রহণ করে তাকে গ্রহীতা বলা হয়।দান কার্যকর অবশ্যই দাতা এবং গ্রহীতা জীবিত থাকাকালীন হতে হবে সেই সাথে দাতাকে অবশ্যই সম্পত্তি হস্তান্তর আইন ১৮৮২ এর ধারা ৭ অনুসারে চুক্তি করার যোগ্যতা সম্পন্ন হতে হবে। তবে চুক্তি করার অযোগ্য ব্যক্তি দান গ্রহণ করতে পারবে কিন্তু দান সম্পর্কিত কোন দায়দায়িত্ব তার উপর অর্পিত হবে না।- আইনের ধারা বিশ্লেষণ


সম্পত্তি হস্তান্তর আইন ১৮৮২ এর ধারা ১২৩ অনুসারে দান কার্যকর হওয়ার জন্য অবশ্যই তা রেজিস্ট্রিকৃত দলিলের মাধ্যমে সম্পন্ন করতে হবে সেই সাথে দলিল দাতা বা তার পক্ষ হতে স্বাক্ষরিত এবং কমপক্ষ দুইজন সাক্ষী দ্বারা প্রত্যায়িত হতে হবে।বর্তমান সময়ে কার্যকর অন্য যেকোন আইনে বিষয় পরিপন্থী যাহা কিছুই থাকুক না কেন,মুসলিম আইনের আওতায় হেবা উপরোক্ত উদ্দেশ্যে স্থাবর সম্পত্তির দান হিসেবে বিবেচিত হবে।তবে অস্থাবর সম্পত্তির দান কার্যকরের জন্য দখল অর্পণ ও প্রয়োজন।


সম্পত্তি দান করার ক্ষেত্রে অস্তিত্বহীন সম্পত্তি দান করা যায় না অর্থাৎ দান করার সময় অবশ্যই সম্পত্তিটির অস্তিত্ব থাকতে হবে।আবার যদি একই দলিলের মাধ্যমে অস্তত্বহীন ও অস্তিত্ববান সম্পত্তি দান করা হয় তাহলে সম্পত্তি হস্তান্তর আইন ১৮৮২ এর ১২৪ ধারা অনুসারে ভবিষ্যৎ সম্পত্তির দান বাতিল হলেও বর্তমান সম্পত্তির দান কার্যকর হবে।


উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়,অমল বিজন বরাবর ক ও খ সম্পত্তি দান করলো।ক সম্পত্তি তার ক্রয়কৃত এবং খ সম্পত্তি তার পিতার নিকট হতে উত্তরাধিকার সূত্রে পেতে পারে।এক্ষেত্রে ক সম্পত্তির দান কার্যকর হলেও খ সম্পত্তির দান বাতিল হবে।


দান কারযকর হবার অন্যতম একটা পূর্বশর্ত হলো দানকৃত সম্পত্তি অবশ্যই গ্রহীতা কতৃক তার জীবদ্দশায় গ্রহণ করতে হবে।কিন্তু যখন একই দলিলের মাধ্যমে একাধিক ব্যক্তিকে দান করা হয় তখন যদি কোন গ্রহীতা তার অংশ গ্রহণে অক্ষম বা অস্বীকৃতি জানায় তবে সম্পত্তি হস্তান্তর আইন ১৮৮২ এর ধারা ১২৫ অনুসারে যে গ্রহীতা তার অংশ গ্রহণে অস্বীকৃতি জানায় বা অক্ষম হয় শুধু সেটুকু অংশের দান বাতিল হবে।


সম্পত্তি হস্তান্তর আইনের ধারা ১২৬ অনুসারে দানের পক্ষগণ এই মর্মে একমত হতে পারে যে, কোন নির্দিষ্ট ঘটনা যা দাতার ইচ্ছার উপর নির্ভরশীল নয় তা ঘটলে দান বাতিল বা স্থগিত হয়ে যাবে,কিন্তু দাতার ইচ্ছার উপর নির্ভরশীল কোন ঘটনার ক্ষেত্রে তারা এরূপ শর্তে একমত হতে পারে না,যদি একমত হয় তবে ক্ষেত্র অনুসারে দান সম্পূর্ণ বা আংশিক বাতিল বলে গণ্য হবে। একটা চুক্তি যে যে ক্ষেত্রে বাতিল হয়ে যায় (পণের অভাব ব্যতীত)সেই ক্ষেত্রগুলোতে দান ও বাতিল হয়ে যাবে।উপর্যুক্ত কারণ ব্যতীত অন্য কোন কারণে দান বাতিল করা যায় না।


যখন কোন দাতা একই দলিলের মাধ্যমে একাধিক দান করে যার একটি দায়যুক্ত এবং অন্যটি দায়যুক্ত থাকে না তখন সম্পত্তি হস্তান্তর আইনের ধারা ১২৭ অনুসারে গ্রহীতা যদি দানপত্রটি গ্রহণ করতে চায় তবা তাকে সম্পূর্ণ দানপত্রই গ্রহন করতে হবে এবং বর্জন করতে চাইলে সম্পূর্ণ দানপত্রই বর্জন করতে হবে।গ্রহীতা কখনোই শুধু সুবিধাটুকু গ্রহণ করে অসুবিধাটুকু বা দায়টুকু বর্জন করতে পারে না।তবে একাধিক দলিলের মাধ্যমে করা হলে সুবিধা সম্বলিত দলিল গ্রহণ করে দায়যুক্ত দলিল বর্জন করতে পারে।আবার দায় পালনে অক্ষম ব্যক্তি বরাবর দায়যুক্ত দান করা হলে দায় পালন না করেও সে দানের সুবিধা ভোগ করতে পারে। তবে দায় পালনে সক্ষম হবার পরেও যদি এই দানকৃত সম্পত্তি নিজ দখলে রাখতে চায় তবে তাকে অবশ্যই দায় পালন করতে হবে।
যখন কোন দাতা তার সমস্ত সম্পত্তি কোন গ্রহীতাকে দান করে দেয় তখন ঐ গ্রহীতা কেবল দানকৃত সম্পত্তির সমপরিমাণ দেনা ও দায়দায়িত্বের জন্য দায়ী থাকবে যা সম্পত্তি হস্তান্তর অইনের ১২৮ ধারায় বলা আছে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.